পাঞ্চজন্য- গজেন্দ্র কুমার মিত্র বাংলা বই পিডিএফ - বাংলা বই এর pdf ডাউনলোড-Bangla Digital Boi Pdf

Latest

Friday, May 17, 2019

পাঞ্চজন্য- গজেন্দ্র কুমার মিত্র বাংলা বই পিডিএফ


পাঞ্চজন্য- গজেন্দ্র কুমার মিত্র বাংলা বই পিডিএফ
ডিজিটাল বইয়ের নাম- পাঞ্চজন্য
লেখক- গজেন্দ্র কুমার মিত্র
বইয়ের ধরন- ধর্ম সম্পর্কিত
ফাইলের ধরন- পিডিএফ
এই বইতে মোট পৃষ্টা আছে-৪৯৬
ডিজিটাল বইয়ের সাইজ- ২৯এমবি
প্রিন্ট ভালো, জলছাপ মুক্ত

মুখবদ্ধ
মহাভারতের তথা শ্ৰকৃষ্ণের কাল একালের থেকে অন্যরকম ছিল তা মনে করার কোন কারণ নেই। শ্রীকৃষ্ণ কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের প্রাক্কালে বলেছেন—“যদা যদাহি ধর্মস্য গ্লানির্ভবতি ভারত/অভ্যূত্থানমধর্মস্য তদাত্মানং সৃজাম্যহম্।।” সেই তিনি যখন ঐ কালে জন্মেছিলেন এবং কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের তিনিই একরকম প্রধান নায়ক-তখন বুঝতে হবে যে র গ্লানি ও অধর্মের অভ্যূত্থান ভালরকমই ঘটেছিল, পৃথিবীর মানুষ অত্যাচারে অবিচারে দুঃখে কষ্টে ‘ত্রাহি’ ‘ত্রাহি' করছিল। নইলে যাকে “ভগবান স্বয়ম্” বলা হয় তিনি অবতীর্ণ হবেন কেন?
বস্তুত ভারতেতিহাসের কাল চিরকালই ঐ কাল। লোভ, অসূয়া, পরশ্রী কাতরতা, দ্বেষ, হিংসা, কলহ, চণ্ডাল-ক্রোধ, শূন্যগর্ভ অহঙ্কার এবং আত্মনাশা বুদ্ধি—এই কি ভারত-ইতিহাসের সামগ্রিক ফলশ্রুতি নয় ?
এ অবস্থা থেকে ভারতকে রক্ষা করতে অনেকেই চেষ্টা করেছেন। সে অসাধ্যসাধনের প্রয়াস পেয়েছেন কেউ ধর্মের পথে, কেউ বা শৌর্যের পথে- অর্থাৎ গায়ের জোরে।
বাহুবলে সাম্রাজ্য স্থাপন করে বাইরে থেকে চাপিয়ে-দেওয়া কৃত্রিম একতায় আত্মতৃপ্তি লাভ করেছেন।
শ্রীকৃষ্ণও কি ভারতকে তার পঞ্চশয্যা থেকে, নিত্য আত্মঅবমাননা থেকে উদ্ধার করতে চেয়েছিলেন, চেয়েছিলেন সম্ভোগমত্ত মদগর্বিত কলহপরায়ণ মাৎস্যন্যায়ধর্মী নির্বোধ বিকৃত ক্ষাত্রশক্তির দূষিত অধীনতা দূর করে শুভবুদ্ধি সম্পন্ন সৎ মানুষের হাতে দেশের ভার তুলে দিতে চেয়েছিলেন জনসাধারণের মনে আত্মবিশ্বাস জাগ্রত করতে ?
সেই জন্যেই কি নিকটাত্মীয়ের কারাগারে তাঁর জন্মগ্রহণ করা, সামান্য গোপালকদের গৃহে লালিত-পালিত হওয়া, একক শক্তিতে কংস বধ করে নিপীড়িত জনসাধারণের মনে আশ্বাস ও আশার সঞ্চার করা। সেই প্রশ্নেরই উত্তর সংগ্রহের চেষ্টা করেছেন লেখক এই গ্রন্থে।
কৃষ্ণ যখন জন্মগ্রহণ করেছেন তখন ভারতের কী চেহারা আমরা দেখি ! মগধাধিপতি সম্রাট জরাসন্ধ ছিয়াশিটি রাজাকে এনে বন্দী করে রেখেছেন আর চৌদ্দটি পেলে রাজমেধ যজ্ঞ বা হত্যামহোৎসব সম্পন্ন করবেন।
কংসের মৃত্যুতে ক্রুদ্ধ জরাসন্ধ নাকি উনবিংশতিবার মধুরা আক্রমণ করেন। তাতে যাদবদের যথেষ্ট ক্ষয়ক্ষতি অবশ্যই হয়েছে, কিন্তু এ অঞ্চলের অধিবাসী জনসাধারণকে যে অবর্ণনীয় দুঃখদুর্দশা ভোগ করতে হয়েছে তার বিবরণ মহাভারতে লেখা না থাকলেও আমরা অনুমান করতে পারি ।
সম্ভবত সেইজন্যই, তাদের কথা ভেবেই আরও, কৃঞ্চ এই বিগ্রহ এড়াবার জন্য বহুদূরে দ্বারাবতী-রৈবতকে গিয়ে বসবাস করেছিলেন জরাসন্ধের বিনাশের অপেক্ষায় বা তার আয়োজনে ।
কালঘবন, চেদীরাজ শিশুপাল, ভগদত্ত, পৌণ্ড্রক বাসুদেব, মদ্ররাজ, সিন্ধুরাজ প্রভূতি সমসাময়িক নৃপতিদের যে রূপ দেখি, সে-সময়কার যেসব যুদ্ধবিগ্রহ দিগ্বিজয়যাত্রা প্রভৃতির বিবরণ পাই—তার কিঞ্চিএ ও ঘদি সত্য হয়, তাহলে স্বীকার করতেই হবে যে সে-সময় সাধারণ দেশবাসীর অবস্থা একালের চেয়ে সুখকর ও শান্তিময় ছিল না, যতই কেন না জীবন এর উপকরণ সুলভ ও সহজপ্রাপ্য হোক ।
সুতরাং-“পরিত্রাণায় সাধুনাং বিনাশায় চ দুস্কৃতাম/ধর্মসংস্থাপনার্থায়" কৃষ্ণের যে প্রচেষ্টা তার কারণ, তার পিছনে পুৰুষোত্তমের যে বেদনা ও ক্ষোভ -তা উপলব্ধি করতে অসুবিধা হয় না। সেই বিরাট প্রচেষ্টার বিপুল আয়োজন, এক অমানুষিক মানুষের অবিশ্বাস্য প্রজ্ঞা, বুদ্ধিকৌশল, পরিকল্পনার কল্পনাতীত বিশালতা, লোকোত্তর মনোবল—তার সাফল্য ও তার ব্যর্থতাই বর্তমান গ্রন্থের উপজীব্য।
পরিশেষে নিবেদন, এটি উপন্যাস মাত্র, জীবনী নয়।
এই মহামানব যে রূপে লেখকের দৃষ্টিতে প্রতিভাত হয়েছেন সেই কপই দেবার চেষ্টা হয়েছে এই গ্রন্থে। এ শ্ৰীকৃষ্ণ লেখকের কল্পনার, ধারণার মানুষ-
বুঝি তার ইচ্ছাতুর স্বপ্নেরও। এর মধ্যে ঐতিহাসিক পারম্পর্য, পৌরাণিক অতিশয়োক্তি বা মুগ্ধ স্তুতিগান খুঁজতে গেলে হয়ত হতাশ হতে হবে।

পাঞ্চজন্য- গজেন্দ্র কুমার মিত্র

উপরোক্ত বাংলা বইটির পিডিএফ ফাইল সংগ্রহ করুন অথবা অনলাইনে পড়ুন
পিডিএফটি পড়ে যদি বইটি ভালো লাগলে তাহলে, বইটির হার্ড কপি সংগ্রহ করবেন
প্রিয় পাঠকগণ, এই পোষ্ট হইতে আপনারা অসাধারণ একটি বই - 'পাঞ্চজন্য- গজেন্দ্র কুমার মিত্র' এর পিডিএফ সংগ্রহ করিতে পারিবেন।

No comments:

Post a Comment